ছোটো থেকে বড়ো সবার হবে পছন্দ! খুব সহজ ঘরোয়া উপায়ে বানিয়ে দেখুন ঠাকুরবাড়ির এই দুর্দান্ত স্বাদের রেসিপি

নিজস্ব প্রতিবেদন: সম্প্রতি গতকাল পেরিয়ে গিয়েছে বিজয়া দশমী। স্বাভাবিকভাবেই বিজয়া উপলক্ষে বাড়িতে অনেক অতিথিদের আগমন ঘটবে। এভাবে সব সময় তো আর একঘেয়ে রান্না করা যায় না। তাই মাঝে সাজে কিছু অন্য রান্না আপনাকে অবশ্যই ট্রাই করতেই হবে। আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা নিয়ে চলে এসেছি বিজয়া দশমী স্পেশাল একটি রেসিপি। যদিও এই রেসিপিটি নিরামিষ তবে অবশ্যই অন্যান্য পদের সঙ্গে আপনারা এটাকেও পরিবেশন করতে পারেন খুব সহজেই। চলুন তাহলে দেরি না করে আমাদের আজকের এই প্রতিবেদনটি শুরু করে দেওয়া যাক। প্রথমেই জানিয়ে রাখি এটি হলো একটি পটলের রেসিপি।

পটলের তৈরি বিশেষ নিরামিষ রেসিপি:

১) প্রথমেই পরিমাণ মতন পটল নিয়ে এটিকে কিছুটা খোসা ছাড়িয়ে নিতে হবে। পটল কিন্তু কাটবেন না অর্থাৎ এটাকে গোটা অবস্থাতেই রেখে গায়ের থেকে কিছুটা খোসা ছাড়িয়ে নেবেন। অন্য একটি বাটিতে আপনাকে নিয়ে নিতে হবে দেড় চামচ পরিমাণ পোস্ত, দুটি কাঁচালঙ্কা এবং সামান্য পরিমাণে আদা। এবার কড়াইতে এক কাপ পরিমাণ দুধ নিয়ে তাতে আপনাকে পটল গুলি দিয়ে দিতে হবে। এরপর গ্যাসে আপনাকে দুধের মধ্যেই পটল সেদ্ধ করে নিতে হবে।

এর জন্য দুধে পটল দেওয়ার পর মোটামুটি দুই থেকে তিন মিনিট ঢেকে রাখলেই কিন্তু কাজ হয়ে যাবে। তবে অবশ্যই আপনাদের ভালোভাবে সেদ্ধ করার জন্য এরপর আরো মিনিট পাঁচেক সময় কিন্তু এটাকে ফুটিয়ে নিতে হবে। সেদ্ধ হয়ে যাওয়ার পরে পটলসহ দুধ কে নামিয়ে নিতে হবে। তারপর ওই করাই সামান্য পরিষ্কার করে নিন। তারপর ওর মধ্যে কিছুটা পরিমাণ ঘি আর সর্ষের তেল আপনাকে মিশিয়ে নিতে হবে। তারপরে প্রথমে যে পোস্ত কাঁচালঙ্কা আর আদা আলাদা করে রেখেছিলেন সেটাকে বেটে এর মধ্যে দিয়ে দিন।। এই সময় গ্যাসের আঁচ আপনাকে মিডিয়াম রাখতে হবে।

২) পোস্ত বাটা দেওয়ার পর আপনাকে এর মধ্যে সামান্য পরিমাণে নুন আর লঙ্কার গুঁড়ো যোগ করে দিতে হবে। এবার গ্যাসের ফ্লেম হাই করে কিছুক্ষণ ভালো করে নাড়াচাড়া করে নিন। পোস্ত ভালোভাবে কষে তেল ছেড়ে দিলে এর মধ্যে হাফ চামচ চিনি দিয়ে দিতে হবে। আপনারা চাইলে পছন্দ মতন মিষ্টির পরিমাণ কম বেশি করে নিতে পারেন। এরপর দুধে সেদ্ধ করা পটল গুলিকে এর মধ্যে আপনাদের দিয়ে দিতে হবে। কিছুক্ষণ ভালোভাবে নাড়াচাড়া করতে থাকুন। পটলটা ভালোভাবে ফুটে উঠলে এর মধ্যে আপনাদের দিয়ে দিতে হবে এক চামচ পরিমাণ গরম মসলার গুঁড়ো।

৩) সবশেষে আপনারা এই রেসিপিটি বেশ কিছুক্ষণ ভালোভাবে ফুটিয়ে নিয়ে গরম গরম পরিবেশন করতে পারেন। পটলের তৈরি এই বিশেষ রেসিপি কিন্তু গরম গরম ধোঁয়া ওঠা ভাত আর ডালের সঙ্গে খেতে দারুন লাগবে। চাইলে কিন্তু আপনারা এটাকে শুধু ও পরিবেশন করতে পারেন।

Back to top button