ছোট থেকে বড় সবার হবে পছন্দ! বাড়িতেই খুব সহজ এই ঘরোয়া পদ্ধতিতে বানিয়ে দেখুন দারুণ টেস্টি এই কচুরী

নিজস্ব প্রতিবেদন: কচুরি এমন একটি খাবার যা শিশু থেকে শুরু করে বয়স্ক সকলেই কিন্তু কমবেশি খেতে অত্যন্ত পছন্দ করে থাকেন। আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা আপনাদের জানাবো কিভাবে বাড়িতে আপনারা সহজেই দোকানের মতন মুগ ডালের কচুরি তৈরি করে নিতে পারেন। করোনা আবহে অনেকেই কিন্তু বাইরের খাবার খাওয়া একেবারেই বর্জন করেছেন। তবে তার মানে এই নয় যে মানুষের মন থেকে খাবারের প্রতি ভালোবাসা চলে গিয়েছে।

এমন অনেক মানুষ রয়েছেন যারা মুগ ডালের কচুরি খেতে অত্যন্ত পছন্দ করে থাকেন। হয়তো আপনাদের মধ্যে অনেকেই এই রেসিপি বানাতেও জানেন। তবুও আজকে আমরা এই রেসিপির একটি অভিনব পদ্ধতি শেয়ার করতে চলেছি যাতে সহজেই এটা বাড়িতে বানানো যেতে পারে। নতুন গৃহিণীরা কিন্তু অবশ্যই এই প্রতিবেদনটি মিস করবেন না। দোকানে বেকার টাকা খরচ না করে বাড়িতেই এই সমস্ত খাবার খাওয়া খুব ভালো। চলুন তাহলে আর দেরি না করে আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনটি শুরু করা যাক।

মুগ ডালের কচুরি বানানোর পদ্ধতি:

১) প্রথমেই আপনাদের একটি মেজারমেন্ট কাপের সাহায্যে পরিমাপমতো দুই কাপ মুগ ডাল নিয়ে নিতে হবে একটি পাত্রে। ভালো করে ধুয়ে নিয়ে এই ডাল আপনাদের দুই ঘন্টা পর্যন্ত ভিজিয়ে রেখে দিতে হবে। মোটামুটি দুই ঘন্টা এভাবে রেখে দেওয়ার পরে কিন্তু ডাল খুব ভালো করে ফুলে যাবে। এরপর অন্য একটি পাত্রের মধ্যে দুই কাপ পরিমাণ ময়দা দিয়ে দিন। চাইলে আপনারা আটা আর ময়দা মিশিয়ে অথবা শুধু আটা দিয়েও কিন্তু এই কচুরি তৈরি করতে পারেন।

এবারে এই ময়দার মধ্যে আপনাদের দিয়ে দিতে হবে স্বাদ অনুযায়ী লবণ, কিছুটা পরিমাণের জোয়ান। তারপর এই ময়দার মধ্যে আপনাদের ময়ানের জন্য দিয়ে দিতে হবে পাঁচ টেবিল চামচ পরিমাণ ঘি। ঘি এর বিকল্প হিসেবে আপনারা কিন্তু তেলও ব্যবহার করতে পারেন। বেশ কিছুক্ষণ ধরে এবার আপনাদের ময়দার এই মিশ্রণটিকে ভালো করে মেখে নিতে হবে।

এবার অল্প অল্প করে আপনাদের এর মধ্যে জল দিয়ে দিতে হবে। একবারে কিন্তু সমস্ত জল ঢালবেন না। তবে ময়দা কিন্তু খুব বেশি নরম বা শক্ত করবেন না। ভালো করে ময়দা মেখে নেবার পরে এটা থেকে একটা ডো তৈরি করে নিন। একটা ভেজা কাপড় দিয়ে এই ময়দার ডো আপনাদের ১৫ মিনিট পর্যন্ত ঢেকে রাখতে হবে।

২) প্রথমে যে ডাল ভিজিয়ে রেখেছিলেন সেটা থেকে এবার জল ঝরিয়ে দিতে হবে। এবারে এই ডালগুলিকে মিক্সার গ্রাইন্ডার এর মধ্যে দিয়ে দিতে হবে বাটার জন্য। এবারে আবারো মিক্সিং জারের মধ্যে কিছুটা পরিমাণ সাবুধনে নিয়ে নিন। এর মধ্যে কিছুটা পরিমাণ গোলমরিচ, মৌরি এবং শুকনো লঙ্কা দিয়ে আপনাদের একটা মশলা তৈরি করে নিতে হবে। এই মসলা আপনারা যদি কচুরিতে ব্যবহার করেন তাহলে কিন্তু একটা অসাধারণ ফ্লেভার চলে আসবে।

তারপর আপনাকে ভালো করে এটাকে গ্রাইন্ড করে মসলা তৈরি করে নিতে হবে। পরবর্তীতে গ্যাসে প্যান বসিয়ে তাতে কিছুটা পরিমাণ তেল দিয়ে দিন। সামান্য গরম হয়ে গেলে যে মসলা আপনারা তৈরি করলেন সেটাকে এর মধ্যে দিয়ে দিন। ভালো করে মশলা ভেজে কিন্তু আপনাদের নিতে হবে যাতে কচুরি খেতেও খুব ভালো লাগে। কিছুক্ষণ নাড়াচাড়া করার পর এর মধ্যে আপনাদের দিয়ে দিতে হবে খুব সামান্য পরিমাণে হিং।

এবারে যেটা সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ একটা উপকরণ মুগডালের কচুরি তৈরির জন্য সেটাকে এই মসলার মধ্যে দিয়ে দিতে হবে। এটা হল এক থেকে দুই কাপ পরিমান বেসন। সামান্য পরিমাণে আদা যোগ করে দিন। তারপর যে মুগ ডাল আপনারা বেটে রেখেছিলেন সেটাকে এই মসলার মধ্যে দিয়ে দিতে হবে।

৩) এরপর কিছুক্ষন নাড়াচাড়া করে এই সমস্ত উপকরণের মধ্যে আপনাদের দিয়ে দিতে হবে এক টেবিল চামচ ধনে গুঁড়ো, এক টেবিল চামচ আমচুর পাউডার, এক চামচ লঙ্কার গুঁড়ো, এক টেবিল চামচ হলুদ গুঁড়ো, স্বাদমতো লবণ, হাফ চামচ ব্ল্যাক সল্ট, ছোট চামচের এক চামচ গরম মসলা, এক টেবিল চামচ কসুরি মেথি।

যদি আপনাদের কাছে আমচুর পাউডার না থাকে সেক্ষেত্রে আপনারা কিন্তু চাট মসলা ব্যবহার করতে পারেন। কিছুক্ষণ নাড়াচাড়া করে আপনাদের একটি পাত্রে এই স্টাফিং মসলা তুলে নিতে হবে। তারপর এটি গরম অবস্থাতে থাকতেই হাত দিয়ে আপনাদের গোল গোল বল তৈরি করে নিতে হবে।

) কচুরি তৈরীর সর্বশেষ ধাপে আপনারা প্রথমে যে ময়দার ডো তৈরি করে রেখেছিলেন সেটাকে আরেকবার ভালো করে মেখে ওখান থেকে ছোট ছোট লেচি কেটে নিতে হবে। এবারে সেই লেচি গুলি থেকে একটা একটা করে অংশ নিয়ে হাত দিয়ে একটু চেপে দিন এবং সেই অংশে এই গোল বল অর্থাৎ পুর গুলিকে দিয়ে দিন।। তারপর কচুরি আপনাদের হালকা বেলে নিতে হবে।

তবে মুগ ডালের কচুরি কিন্তু খুব বেশি পাতলা করবেন না তাহলে এর মধ্যে থাকা পুর বেরিয়ে যেতে পারে। এবার একটি ফ্রাইং প্যানের মধ্যে পর্যাপ্ত পরিমাণে তেল দিয়ে সমস্ত কচুরি গুলিকে আপনাদের নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত ভেজে নিতে হবে।। ব্যাস তাহলেই তৈরি হয়ে গেল অসাধারণ স্বাদের ক্রিসপি এই মুগ ডালের কচুরি।

সকালের জলখাবারে অথবা বিকেলের টিফিনে কিন্তু সহজেই এটাকে আপনারা খাদ্য হিসেবে গ্রহণ করতে পারেন। পাশাপাশি বাচ্চাদের অরুচি দূর করার জন্যও তাদের স্কুলের টিফিনে আপনারা এই মুগ ডালের কচুরি সহজেই পরিবেশন করতে পারেন। রেসিপিটি ভালো লাগলে অবশ্যই বন্ধুবান্ধবদের সাথে শেয়ার করে নেবেন।

Leave a Comment