“জন্ম না দিয়েও মা হওয়া যায়!” দুর্দান্ত চরিত্রে অসাধারণ অভিনয় করে দর্শকদের নজর কাড়লেন একাদশ শ্রেণীর আরাত্রিক মাইতি!

নিজস্ব প্রতিবেদন:- জি বাংলার একটি অত্যন্ত জনপ্রিয় ধারাবাহিক হলো ‘খেলনা বাড়ি’। অল্প সময়ের মধ্যেই এই ধারাবাহিক দর্শকদের মন জয় করে নিয়েছিল নিজে গুনে। বর্তমান সময়ে বাংলা ধারাবাহিক গুলির উপরে যে একঘেয়েমির অভিযোগ বারংবার সামনে আসছে সেই জায়গায় এই ধারাবাহিকটি কিন্তু ছিল অনেকটাই আলাদা।

প্রথম থেকেই কিন্তু এই ধারাবাহিকের গল্প একটা আলাদাই ছন্দ আর গতি নিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে যা দর্শকদের বেশ পছন্দ হয়েছে। ধারাবাহিকে দেখানো হয় যে ইন্দ্রর মেয়ে সোহাগ অনেক ছোটবেলায় বাড়ি থেকে হারিয়ে যায় এই সোহাগকেই কুড়িয়ে পায় মিতুল এবং তার নতুন নাম দেয় গুগলি।

গুগলিকে সে নিজের আদর যত্ন এবং ভালোবাসায় বড় করে তোলে। একটা সময় পর ইন্দ্রর সাথে মিতুলের বিয়ে হয় কিন্তু ইন্দ্রের সন্তান‌ই যে গুগলি তা ইন্দ্র জানতে পারে না। এর পরেই যদিও ঘটনা কিন্তু থেমে থাকেনি। বরং দেখা গিয়েছে ধারাবাহিকে গুগলির নকল মা এসে হাজির হয়েছে। এরপর অনেক কষ্টে সেই নকল মায়ের থেকে লড়াই করে নিজের মেয়েকে আবারো নিজের কাছে ফিরিয়ে নিয়ে আসে মিতুল। সাম্প্রতিককালে যে ট্রাকটি এসেছে সেখানে দেখানো হচ্ছে যে ইন্দ্রর মেজ ভাই ইন্দ্রর মাথার চুল ও গুগলির মাথার চুল নিয়ে গিয়ে ডিএনএ টেস্ট করে এরপর সেই ডিএনএ স্বাভাবিকভাবে ম্যাচ করলে সে জানতে পারে যে এই গুগলি আসলে সোহাগ।

এরপর তাদেরকে মেরে ফেলবার জন্য চক্রান্ত করে। তবে শেষ পর্যন্ত সে এই চক্রান্তে সফল হয়েছে কিনা তা জানতে হলে কিন্তু আপনাদের দেখতে হবে এই ধারাবাহিক। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য সম্প্রতি এই ধারাবাহিককে কেন্দ্র করে সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি পোস্ট ভাইরাল হয়ে উঠে এসেছে। পোস্টটি মিতুল ওরফে আরাত্রিকা মাইতি কে নিয়ে। জন্ম না দিয়েও যে মা হওয়া যায় এই চরিত্রটি তার সবথেকে বড় প্রমাণ এবং এই মিতুল চরিত্রটিকে সার্থকভাবে গড়ে তুলেছেন আরাত্রিকা।

সম্প্রতি গুগলির সঙ্গে তার একটি ছবি শেয়ার করে সোশ্যাল মিডিয়ায় এরকম ধরনের বেশ কিছু পোস্ট শেয়ার করা হয়েছে যেখানে ব্যাপকভাবে প্রশ্ন করা হয়েছে মিতুলের ভূমিকায় অভিনীত আরাত্রিকা মাইতির। সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় সাবরিনা চৌধুরী নামের এক নেটিজেন লেখেন, “আরাত্রিকার অভিনয় গুণের প্রশংসা করে লিখেছেন, “নিজে জন্ম না দিয়েও যে মা হওয়া যায় সেটা রোজ প্রমাণ করে দিচ্ছে মিতুল। নিজের চরিত্রটাকে দিনদিন ছাপিয়ে যাচ্ছে মিতুল ( আরাত্রিকা মাইতি)। কিন্তু এই সিনটা দেখে চোখে জল ধরে রাখতে পারিনি । একটা একাদশ শ্রেণীতে পড়া বাচ্চা মেয়ে এত ভালো অভিনয় কীভাবে করে ? গ্ৰেইট তুমি আরাত্রিকা মাইতি।অনেক দূর এগিয়ে যাও প্রিয় অভিনেত্রী হয়ে”।

ধারাবাহিকের পরবর্তী অংশে কি ঘটনা ঘটবে তা জানতে হলে আপনারা কিন্তু দেখে নিতে পারেন খেলনা বাড়ি ধারাবাহিক। এই প্রতিবেদনটি এবং আর আরাত্রিকার অভিনয় সম্পর্কে আপনাদের কোন মতামত থাকলে তা অবশ্যই কিন্তু কমেন্ট বক্সে শেয়ার করতে ভুলবেন না। নিঃসন্দেহে এই নায়িকার অভিনয় যে দর্শকদের কতটা ভালো লেগেছে তা হয়তো আর আপনাদেরকে এই প্রতিবেদনটি পড়ার পরে বলে বোঝাতে হবে না। এই ধরনের বিভিন্ন টেলিভিশন ইন্ডাস্ট্রির সংক্রান্ত খবরের জন্য নজর রাখতে থাকুন আমাদের পোর্টালের পাতায়।

Leave a Comment