রান্নার স্বাদকে দ্বিগুন করে তুলতে ব্যবহার করুন এই বিশেষ মসলা, জেনে নিন ৪টি দুর্দান্ত মসলা তৈরীর এই বিশেষ পক্রিয়া!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- দৈনন্দিন জীবনে বিভিন্ন রান্না কিন্তু মসলার প্রয়োগ ছাড়া হয় না। মসলা ছাড়া রান্না তৈরি করলে তার মধ্যে সেই স্বাদ থাকে না যেটা হয়তো অন্যান্য কোন রান্নায় থাকতে পারে। আজকাল বাজারের বিভিন্ন দোকানে কিন্তু আপনারা খুব সহজেই নানান ধরনের স্বাদের মসলা কিনতে পেয়ে যাবেন। তবে দোকানের সেই সমস্ত মসলাতে কিন্তু অনেক ক্ষেত্রেই নানান ধরনের ভেজাল মেশানো হয়ে থাকে যার দরুন এর স্বাদ খুব একটা ভালো হয় না।

আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা তাই আপনাদের জন্য চার ধরনের মসলা রেসিপি শেয়ার করতে চলেছি যেটা ছাড়া কিন্তু আপনাদের কাজ হবে না বলাই যায়। এই চার ধরনের মসলার রেসিপি হল মাছের মসলা, মাংসের মসলা, মুরগি মসলা এবং বিরিয়ানি মসলা। যদি আপনাদের এই পদ্ধতি বা রেসিপিগুলি ভালো লেগে থাকে তাহলে কিন্তু অবশ্যই শেয়ার করে নিতে ভুলবেন না।

  • বিরিয়ানি মসলা তৈরীর পদ্ধতি:

প্রথমেই আপনাদের মসলাগুলোকে রোস্ট করে নিতে হবে। তার জন্য একটি বড় প্লেটে আপনাদের দিয়ে দিতে হবে গোটা ধনে হাফ কাপ, এরপর দিতে হবে গোটা জিরে, কালো জিরে, মিষ্টি জিরে ১ টেবিল চামচ, এলাচ প্রায় ২৫ টা, লবঙ্গ ১ টেবিল চামচ, কালো এলাচ তিনটে, জয়ত্রী ফুল তিনটে, তারা মৌরি দুইটি, দারচিনি দুইটি, শুকনো লঙ্কা ৫ থেকে ৬টা, তেজপাতা তিনটে। এরপর খুবই লো হিটে আপনাদের মসলাগুলোকে রোস্ট করে নিতে হবে।

মসলাগুলো যে খুব সুন্দর ভাজা হয়েছে সেটা বোঝার জন্য আপনারা এই মসলাগুলো থেকে যেকোনো একটি তেজপাতা তুলে যদি দেখেন সেটা একেবারে মুচমুচে হয়ে গিয়েছে তাহলে বুঝে যাবেন কিন্তু রোস্ট সম্পূর্ণ। শুকনো খোলায় এটাকে ভেজে নেওয়ার পরে একটা প্লেটের মধ্যে এই মসলাটাকে আপনাদের নিয়ে নিতে হবে। অবশ্যই কিন্তু কখনো এই মসলা আপনারা গরম অবস্থায় ব্লেন্ড করবেন না তাহলে সমস্যা হতে পারে। মসলার সম্পূর্ণরূপে ঠান্ডা করে একটি ব্লেন্ডারে নিয়ে নিতে হবে।

তারপর ভালো করে এটাকে গুঁড়ো করে নিন। এবারে কয়েকটি ছোট এলাচ আর দারচিনি গুঁড়ো করে নিয়ে এর মধ্যে মিশিয়ে দিতে হবে। এরপর এতে একটি তেজপাতা ছোট করে ভেঙে নিয়ে যোগ করে দিন এবং দিয়ে দিন সামান্য পরিমাণে কেওড়া জল। সমস্ত মসলা ভালোভাবে তৈরি করে নিলেই কিন্তু তৈরি হয়ে যাবে পারফেক্ট স্বাদের বিরিয়ানি মসলা।

এরপর একটি কাঁচের জারের মধ্যে খুব সহজেই কিন্তু দীর্ঘদিন পর্যন্ত এই মসলা আপনারা সংরক্ষণ করে রাখতে পারেন। চাল আর মাংস মিলিয়ে এক কেজি পরিমাণ বিরিয়ানির জন্য আপনারা তিন টেবিল চামচ বিরিয়ানির মসলা ব্যবহার করতে পারেন।

  • মাছের মসলা তৈরির পদ্ধতি:

মাছের মসলা তৈরি করার জন্য আগের মতোই একটি ওভেনে আপনাদের প্যান বসিয়ে দিতে হবে। তারপর এতে দিয়ে দিতে হবে আস্ত ধনে এক টেবিল চামচ, আস্ত জিরে এক টেবিল চামচ, মৌরি ২ টেবিল চামচ, তেজপাতা চারটে। তারপরে ঠিক লো টু মিডিয়াম হিটে আপনাদের মিনিট দুয়েক সময় পর্যন্ত এই সমস্ত মসলাগুলোকে কিন্তু শুকনো খোলায় ভেজে নিতে হবে। তেজপাতা যদি আবারও সেরকমই মুচমুচে হয়ে যায় তাহলে বুঝবেন মসলা তৈরি হয়ে গিয়েছে। মশলার মধ্যে এবার আপনাদের সামান্য পরিমাণে, প্রায় দু চামচ জোয়ান দিয়ে দিতে হবে।

মোটামুটি আরও মিনিট দু এক সময় রোস্ট করার পরে ব্লেন্ডারে আপনাদের এই মসলাগুলো গুঁড়ো করে নিতে হবে। তবে অবশ্যই ঠান্ডা হওয়ার পরে গুঁড়ো করবেন। গুড়ো হয়ে যাওয়ার পরে এতে আপনারা প্রায় এক থেকে দুই চামচ পরিমাণ কর্নফ্লাওয়ার যোগ করে দিতে পারেন।

মোটামুটি আরো মিনিট খানেক সময় ব্লেন্ড করে নিলেই কিন্তু সমস্ত উপকরণ একসাথে মিশে তৈরি হয়ে যাবে মাছের মসলা।

১ কেজি পরিমাণ মাছ ভাজা বা রান্না করার জন্য আপনাদের কিন্তু তিন টেবিল চামচ পরিমাণ মাছের মসলার প্রয়োজন হবে।

  • চিকেন মশলা বা মুরগির মসলা তৈরি করার পদ্ধতি:

এই মসলা তৈরি করার জন্য আপনাদের প্যানের মধ্যে দিয়ে দিতে হবে গোটা ধনে, গোটা জিরে, মৌরি ২ টেবিল চামচ, শাহী জিরা এক টেবিল চামচ,কালো গোলমরিচ এক টেবিল চামচ, সবুজ এলাচ ২০ টা, জয়ত্রী ফুল দুইটা, জায়ফল একটা, লবঙ্গ দারচিনি, কালো এলাচ ৪ টে, তেজপাতা দশটা এবং কাজুবাদাম ২০ গ্ৰাম। ভালো করে লো টু মিডিয়াম ফ্লেমে আপনাদের কিন্তু মসলাগুলোকে ভেজে নিতে হবে।

তারপরে ভালো করে ঠান্ডা হওয়ার জন্য অপেক্ষা করতে থাকুন। যতক্ষণ এটা ঠান্ডা হচ্ছে ততক্ষণ একটি প্যানের মধ্যে আবারও কিছু পরিমাণে শুকনো লঙ্কা নিয়ে নিন। কয়েক মিনিট ভেজে নিতে হবে।

তারপরে এই শুকনো লঙ্কাগুলিকেও ওই মসলার উপকরণের মধ্যে নিয়ে ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে নিতে হবে। ব্যাস তাহলেই তৈরি হয়ে যাবে মুরগি মসলা।

  • জাদুকরি মাংসের মশলা তৈরীর পদ্ধতি:

অসাধারণ স্বাদের এই চিকেন মশলা তৈরি করার জন্য আপনাদের একটি গ্যাস ওভেনের উপর প্যান বসিয়ে গরম করে নিতে হবে। তারপর এর মধ্যে কয়েক টুকরো দারচিনি দিয়ে দিন। এরপর দিয়ে দিন মিষ্টি জিরা বা মৌরি তিন টেবিল চামচ, ২ টেবিল চামচ মেথি, কালো জিরে এক টেবিল চামচ, গোলমরিচ আর টেবিল চামচ, এলাচ ১ টেবিল চামচ, লবঙ্গ ১ চা চামচ, কালো এলাচ, জায়ফল দুইটা, জয়িত্রিফুল দুইটা, তারা মৌরি দুইটা, ছ থেকে সাতটা তেজপাতা।

এবারে লো টু মিডিয়াম হিটে আপনাদের সমস্ত উপকরণ গুলিকে আবারো ভালো করে ভেজে নিতে হবে। এবারে বেশ কিছুক্ষণ সময় ভেজে নেওয়ার পরে আপনারা এটাকে নামিয়ে নিন। তারপরে খুব সহজেই ঠান্ডা হবার পর এটাকে ব্লেন্ডারে গুড়ো করে নিলেই তৈরি হয়ে যাবে অসাধারণ স্বাদের এই মাংসের মসলা।

চিকেন অথবা মাটন তৈরির জন্য খুব সহজেই আপনারা এটাকে ব্যবহার করতে পারবেন।

Back to top button