পশ্চিমবঙ্গের সবচেয়ে সস্তা শাড়ির মার্কেট! এখানে পাওয়া যায় একদম জলের দামে শাড়ি!

নিজস্ব প্রতিবেদন : শাড়ি পড়তে ভালোবাসেন না এমন মহিলা কিন্তু খুব কমই রয়েছেন। যেকোনো উৎসব অনুষ্ঠান থেকে পূজা পার্বণ সবকিছুতেই কিন্তু মহিলারা শাড়ি খরিদ করে থাকেন। বর্তমানে যেভাবে শাড়ির দাম বেড়ে চলেছে তাতে কিন্তু সমস্যায় পড়ছেন অনেকে। সাধারণ বাজারে কিন্তু শাড়ির দাম অত্যন্ত বেড়ে গিয়েছে।

আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা আপনাদের সঙ্গে আলোচনা করে নিতে চলেছি পশ্চিমবঙ্গের সব থেকে সস্তা শাড়ি মার্কেটের কথা। এখানে আপনারা অবিশ্বাস্য রকমের জলের দামে শাড়ি কিনতে পারবেন। সব থেকে ভালো ব্যাপার আপনারা কিন্তু এখানে সিঙ্গেল পিস শাড়ি খরিদ করতে পারবেন। অর্থাৎ যারা ব্যবসায়ী নন তারাও কিন্তু এখানে খুব সহজেই শাড়ি কেনাকাটা করতে আসতে পারেন।

আজকে আমরা যে দোকানটির কথা আলোচনা করব সেখানে মোটামুটি যে কোন রকমের সিল্কের শাড়ি আপনারা ১০০ টাকা থেকে পেয়ে যাবেন।জামদানি এবং হাজারবুটি শাড়ি আপনারা পাবেন যথাক্রমে 350 ও 400 টাকা থেকে। সাধারণ বাজারের যেকোন দোকানে কিন্তু সিল্কের শাড়ির দাম মোটামুটি তিন থেকে 400 টাকার কাছাকাছি থাকে। অন্যদিকে জামদানির দাম তো আকাশছোঁয়া।

বাজারের যেকোনো বড় দোকানে জামদানি কিন্তু এক হাজার টাকার নিচে আপনারা পাবেন বলে মনে হয় না। এবার আপনাদের মনে হয়তো প্রশ্ন আসতেই পারে এই দোকানে কিভাবে এত কম দামে এই শাড়ি গুলি বিক্রয় করা হচ্ছে! প্রসঙ্গত এই সমস্ত দোকানে সাধারণত হোলসেল দামে মাল বিক্রয় করা হয়ে থাকে। তাই শাড়ি গুলির অরিজিনাল প্রাইসের মধ্যেই আপনারা কিন্তু এগুলি খরিত করতে পারবেন।।

ব্যবসায়ীরা এই সমস্ত জায়গা থেকে শাড়ি খরিদ করার পর যখন তার সাধারণ বাজারে বিক্রয় করে থাকেন তখন কিন্তু সেই শাড়ি গুলির দাম অনেকটাই বেড়ে যায়। শুধুমাত্র জামদানি কিংবা সিল্কের শাড়ি নয় এখানে আপনারা পেয়ে যাবেন কাতান বেনারসি,বালুচরি থেকে শুরু করে শান্তিপুরী তাঁত, সফট কটন এবং আরো নানান ধরনের ডিজাইনার শাড়ি যা আপনাদেরকে খুব সহজেই আকৃষ্ট করবে। যদি আপনি আপনার মা বা স্ত্রীকে কোন রকমের শাড়ি উপহার দিতে চান তাহলেও কিন্তু এখান থেকে এসে সেটি কিনে নিয়ে যেতে পারেন।।

এবারে আপনাদের জানিয়ে দেবো ঠিক কোথায় এই শাড়ি গুলি আপনারা পাবেন? পশ্চিমবঙ্গের সবচেয়ে সস্তা শাড়ি মার্কেট রয়েছে, মঙ্গলা হাটে।এই জায়গাটি কলকাতায় অবস্থিত‌। এখানে কিন্তু আপনারা অনলাইনের মাধ্যমে ও শাড়ি অর্ডার করে দিতে পারেন। অর্থাৎ শাড়ি কেনার জন্য আপনাদেরকে কিন্তু দোকানে যাওয়ার প্রয়োজন হবে না। দূরবর্তী স্থানে বসবাস করে থাকেন যারা তাদের কোনরকম অসুবিধা হবে না। বিস্তারিত জানতে আমাদের পরবর্তী প্রতিবেদন গুলির উপর নজর রাখতে থাকুন।।

Back to top button