একেবারে বিয়েবাড়ির স্টাইলে বাড়িতেই খুব সহজ এই ঘরোয়া পদ্ধতিতে বানিয়ে নিন দুর্দান্ত স্বাদের ছ্যাঁচড়ার রেসিপি

নিজস্ব প্রতিবেদন: অনুষ্ঠান বাড়ি থেকে শুরু করে সব জায়গাতেই কিন্তু ছ্যাঁচড়ার রেসিপি তৈরি করা হয়ে থাকে। অনেকেই কিন্তু এই রেসিপি বানাতে গিয়ে নানান ধরনের সমস্যার মুখোমুখি হন। কোনভাবে তৈরি করে নিলেও তা হয়তো একেবারে পারফেক্ট হয়ে ওঠে না।

আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা তাই আপনাদের সাথে শেয়ার করে নিতে চলেছি একেবারে বিয়ে বাড়ির স্টাইলে ছ্যাঁচড়া তৈরির রেসিপি। সুতরাং যারা এই রেসিপিটি পছন্দ করে থাকেন তারা কিন্তু অবশ্যই আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনটি ভুল করেও মিস করবেন না। চলুন আর সময় নষ্ট না করে শুরু করা যাক।

বিয়েবাড়ির স্টাইলে ছ্যাঁচড়া তৈরির রেসিপি:

১) ছ্যাঁচড়া তৈরি করার জন্য আপনাদের প্রথমেই কয়েকটি কাতলা মাছের মাথা নিয়ে নিতে হবে। ভালো করে এগুলি পরিষ্কার করে নেওয়ার পরে হাফ চা চামচ লবণ আর সামান্য পরিমাণে হলুদ গুঁড়ো এর মধ্যে দিয়ে দিন। লবণ আর হলুদ গুঁড়ো মাখিয়ে মাছের মাথা গুলি কে আপনাদের 10 থেকে 15 মিনিট পর্যন্ত রেখে দিতে হবে। অন্যদিকে একটা থালার মধ্যে আপনাদের বড় টুকরো করে কেটে রাখা মিষ্টি কুমড়ো নিয়ে নিতে হবে।

এছাড়াও নিতে হবে 6 থেকে 7টা পটল, 3টে মিডিয়াম সাইজের ঝিঙ্গে এবং চারটে ছোট সাইজের বেগুন। প্রত্যেকটা সবজিকেই কিন্তু একটু লম্বা করে টুকরো করে কেটে নিন। তারপর আপনাদের পুঁইশাক কেটে নিতে হবে। এই রান্না করতে হলে আপনাদের একটু সরু আর ডাটা আছে এরকম পুঁইশাক নিতে হবে। এরপর শাক আর ডাটা আপনাদের আলাদা করে ছাড়িয়ে নিতে হবে যাতে ছ্যাঁচড়া তৈরির সময় অসুবিধা না হয়। এরপর শাকগুলিকে একেবারে ছোট টুকরো করে কেটে নিন।

২) এবার এই রান্নাটি করার জন্য আপনাদের কড়াইতে পর্যাপ্ত পরিমাণে সরষের তেল দিয়ে দিতে হবে। ছ্যাঁচড়া রান্না করতে গেলে কিন্তু তেলের ব্যবহার একটু বেশি করতে হবে। তেল ভালোভাবে গরম হয়ে গেলে লবণ আর হলুদ মাখিয়ে রাখা মাছের মাথা গুলোকে এর মধ্যে দিয়ে ঢাকা দিয়ে গ্যাসের ফ্লেম মিডিয়ামে রেখে ভেজে নিতে হবে। মাছের মাথা ঠিকভাবে ভাজা না হলে কিন্তু ছ্যাঁচড়ার পারফেক্ট স্বাদ আসবে না। মাছের মাথা ভাজা হয়ে গেলে আপনাদের হামান দিস্তা দিয়ে রসুন থেঁতো করে নিতে হবে।

এবার কড়াইতে থাকা বাকি তেলের মধ্যে আপনারা এক চা চামচ পরিমাণ পাঁচফোড়ন, দুটো তেজপাতা, চারটে শুকনো লঙ্কা দিয়ে ভালোভাবে নাড়াচাড়া করে নিন। ফোড়ন ভালো করে ভেজে নেওয়ার পর এর মধ্যে আপনাদের থেঁতো করে রাখা রসুন দিয়ে দিতে হবে। তারপর এতে দিতে হবে দুটো বড় সাইজের স্লাইস করে কুচিয়ে নেওয়া পেঁয়াজ।

ভালো করে সমস্ত রান্নাটিকে নাড়াচাড়া করতে থাকুন। এবার এই রান্নাটির মধ্যেই আপনাদের বড় টুকরো করে কেটে নেওয়া আলু আর রাঙ্গা আলু দিয়ে দিতে হবে। তারপর এর মধ্যে দিয়ে দিন আগে থেকে কেটে রাখা মিষ্টি কুমড়ো, পটল। আপনারা কিন্তু চাইলে সবজির পরিমাণ নিজেদের ইচ্ছেমতো ব্যবহার করতে পারেন।

৩) আলু, পটল আর কুমড়ো একসঙ্গে কিছুক্ষণ নাড়াচাড়া করে নেবার পরে এর মধ্যে আপনাদের কেটে রাখা বেগুন আর ঝিঙে দিয়ে দিতে হবে। সবজিগুলোকে মিনিট দুয়েক সময় ধরে একসাথে ভেজে নেওয়ার পরে এর মধ্যে আপনাদের কেটে রাখা পুঁইশাকের ডাটা দিয়ে দিতে হবে। রান্নার এই পর্যায়ে স্বাদমতো লবণ,এক চা চামচ লাল লঙ্কার গুঁড়ো, এক চা চামচ কাশ্মীরি লঙ্কার গুঁড়ো আর এক চা চামচ হলুদ গুঁড়ো যোগ করে দিন।

এবার গ্যাসের ফ্লেম হাই করে আপনাদের সবজিগুলো মিনিট দুয়েক সময় ভালো করে ভেজে নিতে হবে। তারপর দুই থেকে তিন মিনিট সময় আপনাদের এটাকে ঢাকা দিয়ে রাখতে হবে। প্রসঙ্গত ছ্যাচড়া রান্না করার সময় আপনাদের আলাদা করে জলের ব্যবহার করার প্রয়োজন নেই। সবজি থেকে যে জল বেরোবে সেটাতেই কাজ হয়ে যাবে।। এরপর আপনাদের পুঁইশাক বা পুঁই পাতাগুলোকে দিয়ে দিতে হবে।

৪) এরপর দেখবেন কিছুক্ষণের মধ্যেই সবজি থেকে কিন্তু আরও জল ছাড়তে শুরু করে দিয়েছে। এরপর আগে থেকে ভেজে রাখা মাছের মাথাগুলোকে আপনাদের মধ্যে দিয়ে দিতে হবে। এবার মিনিট পাঁচেক সময় আপনাদের ভালো করে ঢাকা দিয়ে রেখে দিতে হবে। এরপর আরেকটু ভালো করে নাড়াচাড়া করে নিন। দেখবেন সমস্ত সবজি মোটামুটি ভালো করেই সেদ্ধ হয়ে যাবে।

যদি খুব বেশি জল থাকে সেক্ষেত্রে গ্যাসের ফ্লেম হাই করে দিয়ে ভালো করে মিলিয়ে মিশিয়ে আপনাদের ছ্যাঁচড়া ভাজা ভাজা করে নিতে হবে। মাছের মাথার যে বড় টুকরোগুলো রয়েছে সেটা কে আপনারা খুন্তি দিয়ে একটু ভেঙে নিতে পারেন।

ভালো করে মিশিয়ে নেওয়ার পর এর মধ্যে পাঁচ থেকে ছয়টা চেড়া কাঁচা লঙ্কা এবং দেড় চা চামচ পরিমাণ চিনি মিশিয়ে দিন। কতটা সবজি ব্যবহার করবেন সেটার উপরেই কিন্তু লবণ আর চিনি দেওয়ার পরিমাণ নির্ভর করছে। আরো দুই থেকে তিন মিনিট ভালো করে নাড়াচাড়া করে গরম গরম রেসিপিটি নামিয়ে নিন। ভাতের সাথে কিন্তু এই রেসিপি খেতে দারুণ লাগবে।

Back to top button