বাড়িতে সহজ পদ্ধতিতে ডিম ও মুসুর ডাল দিয়ে বানিয়ে ফেলুন ধোকার রেসিপি, যার স্বাদ হয় দুর্দান্ত

নিজস্ব প্রতিবেদন :বাঙালি ভোজনরসিক জাতি। বিভিন্ন রান্নাবান্না নিয়ে তারা কিন্তু এক্সপেরিমেন্ট করতে অত্যন্ত ভালোবাসেন। আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনেও আমরা আপনাদের জন্য কিন্তু একটি স্পেশাল রেসিপি নিয়ে হাজির হয়েছে। ৮ থেকে ৮০ এই রেসিপি সকলেরই কিন্তু ভালো লাগবে। তাহলে চলুন একেবারেই দেরি না করে আজকে আমরা কি বানাতে চলেছি তা জেনে নেওয়া যাক। আজকে আমরা তৈরি করব ডিম ও মুসুর ডাল দিয়ে ধোকার ডালনা।

ডিম ও মুসুর ডাল দিয়ে তৈরি ধোকার ডালনা:

১) প্রথমেই ধোকা বানানোর জন্য আপনাদের এক কাপ পরিমাণ মুসুর ডাল নিয়ে ভিজিয়ে রাখতে হবে। মোটামুটি তিন থেকে চার ঘন্টা ভিজিয়ে রাখলেই কাজ হয়ে যাবে। এছাড়াও আপনাদের নিতে হবে দুটি ডিম, কাঁচা লঙ্কা, ২ টেবিল চামচ নারকেল কোরা, পরিমাণ মতো রসুন বাটা, হলুদ গুঁড়ো, জিরে গুঁড়ো, স্বাদমতো লবণ আর সাদা তেল।

২) প্রথমেই আপনাদের মুসুর ডাল ডিম এবং কাঁচা লঙ্কা একসাথে নিয়ে মিক্সার গ্রাইন্ডারে একটি পেস্ট তৈরি করে নিতে হবে। ধোকা বানানোর জন্য করাইতে অল্প করে তেল নিয়ে তা গরম করে নিতে হবে। এর মধ্যে আপনাদের রসুন বাটা আর নারকেল কোরা ঢেলে দিয়ে তেলে ভেজে নিতে হবে।। তারপর এর মধ্যে আপনাদের দিয়ে দিতে হবে ডাল আর ডিমের মিশ্রণ। ধীরে ধীরে হলুদ গুঁড়ো, জিরেগুঁড়ো আর লবণ এর মধ্যে দিয়ে দিতে হবে। ভালো করে এবারের সমস্ত উপকরণ নাড়াচাড়া করে নিতে হবে এবং তাদের মধ্যে বাড়তি জল থাকলে সেটা কেও শুকিয়ে নিন।

৩) ডালের মিশ্রণটিকে কিছুক্ষণ নাড়াচাড়া করে নিয়ে একটি পাত্রে নামিয়ে নিতে হবে। যে পাত্রে নামাবেন সেই পাত্রে কিন্তু একটু তেল লাগিয়ে রাখতে ভুলবেন না। তারপর এটাকে প্রথমে হাতার সাহায্যে এবং পরে হাত দিয়ে ভালো করে সমান করে নিতে হবে। এবারে এটাকে চৌকো চৌকো করে পিস কেটে নিতে হবে। আপনারা কিন্তু নিজেদের পছন্দ মতন পিস তৈরি করতে পারেন। এবারে কড়াইতে আবারো পরিমাণ মতন তেল দিয়ে ধোকা গুলিকে আপনারা ভালো করে ভেজে নিন। তবে এই ধোকা যদি সরাসরি গরম তেলে দিয়ে থাকেন তাহলে কিন্তু ডাল ছেড়ে যাওয়ার ভয় থাকে। তাই তেলে দেওয়ার আগে একটা ব্যাটার আপনারা তৈরি করে নিন ময়দা ও জল মিশিয়ে।এবারে ধোকা গুলির মধ্যে সেই ব্যাটার লাগিয়ে ভালো করে গরম তেলে ভেজে নিন।

৪) ধোকা ভালোভাবে ভেজে নেওয়া হয়ে গেলে একটি আলাদা পাত্রে তুলে রেখে দিন। এবার আসা যাক ডালনা বানানোর কথায়। ডালনা বানানোর জন্য প্রথমেই রাখবে আলু যেগুলি আপনাকে মাঝারি মাপ করে কেটে নিতে হবে। এছাড়াও টমেটো কুচি, পেঁয়াজ কুচি ,নুন, পরিমাণ মতন জিরেগুঁড়ো, লঙ্কাগুঁড়ো, হলুদ গুঁড়ো, পরিমাণ মতো তেল, আদা রসুন বাটা, ধনেপাতা কুচি, গোটা জিরা, ধনে গুঁড়ো, লবঙ্গ, তেজপাতা, শুকনো লঙ্কা, দারচিনি এবং এলাচ।

এবারে আপনাদের প্রথমেই কড়াইতে পরিমাণ মতন তেল দিয়ে তাতে আলু দিয়ে ফেলতে হবে। আলু একেবারে লাল করে ভাজা হয়ে গেলে তুলে রেখে দিন। এবার ওই তেলের মধ্যেই দারচিনি, লবঙ্গ, এলাচ, তেজপাতা, শুকনো লঙ্কা আর গোটা জিরে দিয়ে দিতে হবে। খুবই হালকা ফ্লেমে এবার আপনাদের এগুলি নাড়াচাড়া করে নিতে হবে যাতে গন্ধ ভালো আসে। তারপর এর মধ্যে কুঁচিয়ে রাখা পেঁয়াজ দিয়ে দিন। পেঁয়াজ ভালোভাবে ভেজে নেওয়া হয়ে গেলে এর মধ্যে আপনাদের দিতে হবে আদা রসুন বাটা, টমেটো কুচি, জিরে গুঁড়ো, ধনে গুঁড়ো, হলুদ গুঁড়ো, লঙ্কার গুঁড়ো এবং পরিমাণ মতন নুন।

৫) এবার আপনাদের সমস্ত উপকরণ একসাথে ভালো হবে নাড়াচাড়া করে নিতে হবে যাতে আদা রসুনের কাঁচা গন্ধ সম্পূর্ণভাবে চলে যায়। ৫ থেকে ৭ মিনিট পর্যন্ত এটাকে ঢাকা দিয়ে আপনারা রেখে দিন। তারপরে এর মধ্যে ভেজে রাখা আলু দিয়ে মসলার সঙ্গে নাড়াচাড়া করে নিতে হবে। এবারে এর মধ্যে জল ঢেলে দিন। যদি মনে হয় আপনাদের আরো নুন দিতে হবে তাহলে কিন্তু রান্নার এই পর্যায়ে দিয়ে দিন।

গ্রেভি ফুটে উঠলে আঁচ কমিয়ে ঢাকা দিয়ে দু থেকে তিন মিনিট পর্যন্ত রান্না হতে দিন।। এবারে এর মধ্যে আপনাদের ভেজে রাখা ধোকা দিয়ে দিতে হবে। সমস্ত উপকরণকে ভালো করে নাড়াচাড়া করে 15 মিনিট পর্যন্ত ঢাকা দিয়ে রান্না হতে দিন।। না হলে কিন্তু ধোকার ভিতর ভালোভাবে তেল মশলা ঢুকবে না। ব্যাস তৈরি হয়ে গেল আপনাদের ধোকার ডালনা। নির্দিষ্ট সময় পরে এসে এতে সামান্য ধনেপাতার কুচি অথবা ঘি ঝরিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন।

Back to top button