কাজল লেপ্টে আপনার চোখের সৌন্দর্য কি নষ্ট করে দিচ্ছে? জেনে নিন কিছু সহজ টিপস

নিজস্ব প্রতিবেদন: মেকআপের জন্য হোক বা নরমাল সাজগোজ এর ক্ষেত্রে কাজল কিন্তু একটি মুখ্য ভূমিকা পালন করে থাকে। কাজলের ব্যবহারে আমাদের চোখ হয়ে ওঠে খুবই সুন্দর। তবে কাজল পড়ার সময় বেশ কিছু সমস্যায় পড়ে থাকে মেয়েরা। প্রথমত অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায় কাজল পড়লে চোখ খুব বেশি রকমের কালো দেখায়, বা হয়তো চোখের নিচের অংশে অর্থাৎ নিচের স্কিনে কাজল লেগে যায়।

পাশাপাশি অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় কাজল কিন্তু লং লাস্টিং হয় না। আসলে পুরো দোষটাই কিন্তু কাজল পড়ার উপরে নির্ভর করে। সঠিক পদ্ধতিতে কাজল পড়তে জানলে কিন্তু এই সমস্যাগুলো কোনোভাবেই হবে না। সুতরাং যারা কাজল করতে ভালোবাসেন বা কাজল ছাড়া সাজ অসম্পূর্ণ বলে মনে করেন তারা কিন্তু আজকের এই প্রতিবেদনটি ভুল করেও মিস করবেন না। চলুন তাহলে আর দেরি না করে জেনে নেওয়া যাক কাজল পড়ার সঠিক পদ্ধতি। আজকের এই প্রতিবেদনটি ভালো লাগলে অবশ্যই কিন্তু পরিচিত মা-বোনেদের সঙ্গে শেয়ার করতে ভুলবেন না।

  • কাজল পড়ার সঠিক এবং সুন্দর পদ্ধতি:

১) যদি আপনাদের চোখের চারপাশ খুব বেশি তৈলাক্ত হয়ে থাকে তাহলে কিন্তু সেই তৈলাক্ত ভাব কন্ট্রোল করার জন্য আপনাদের বরফ জল ব্যবহার করতে হবে। এর জন্য আপনাদের একটি বড় পাত্রের মধ্যে বরফসহ জল নিয়ে নিতে হবে। তারপর একটি রুমালের সাহায্যে আইস কিউব গুলিকে মুড়িয়ে নিয়ে চোখের চারপাশে লাগাতে থাকুন। অথবা ওই বরফ জলের মধ্যে আপনারা কটন বল চুবিয়েও কিন্তু তা চোখের চারপাশে লাগাতে পারেন। এই পদ্ধতি প্রয়োগ করলে চোখের চারপাশের অতিরিক্ত তেল খুব সহজেই শুষে নেওয়া হবে।

২) দ্বিতীয় পদ্ধতিতে আপনাদের প্রথমেই একটা বিবি ক্রিম ভালো করে চোখের চারপাশে লাগিয়ে নিতে হবে।PONDS BB CREAM কে আপনারা সহজেই এই কাজে ব্যবহার করতে পারেন। এরপর যে কোন লুজ পাউডার দিয়ে আপনাদের বিবি ক্রিম সেট করে নিতে হবে। যেকোনো বেবি পাউডার বা হোয়াইট টোন পাউডার আপনারা এই কাজে ব্যবহার করতে পারেন। অনেক সময় আমাদের কাজল পড়ার পরে নিচের দিকে নেমে যায়। তবে এই দুটি স্টেপ যদি আপনারা ঠিকঠাক করতে পারেন তাহলে কিন্তু আর এই সমস্যা দেখা দেবে না। কারণ চোখের চারপাশ বেশ শুকনো হয়ে যাবে তাই কাজল নেমে যেতে পারবে না।

৩) এবার তৃতীয় ধাপে আপনাদের সঠিকভাবে কাজল পড়ে নিতে হবে। তবে যে কোন ব্র্যান্ডের কাজল আপনারা ব্যবহার করুন না কেন সেটা অবশ্যই ওয়াটারপ্রুফ কিনা তা যাচাই করে নেবেন। কাজলের দাম খুব একটা বেশি হয় না সুতরাং আপনাদের খুব বেশি অর্থ খরচ করার প্রয়োজন নেই।

কাজল যখন পড়বেন তখন কিন্তু এটাকে একেবারে লাগাবেন না।আমাদের চোখ দিয়ে কিন্তু বেশিরভাগ ইনার কর্নার থেকে জল পড়ে। তাই সবসময় শেষের অংশ থেকে কাজল সামনে টেনে নিয়ে আসবেন, ইনার কর্নার থেকে কখনোই নয়। লোয়ার লাইনে কাজল লাগানোর পরে চোখের উপরের অংশে ভেতর দিকেও আপনারা একটু কাজল লাগিয়ে নিতে পারেন।

৪) কাজল পড়ে নেওয়ার পরে আপনার একটা ব্ল্যাক কালারের আই শ্যাডো ব্যবহার করতে পারেন। এটি ব্যবহার করলে কিন্তু কাজল লং লাস্টিং হবে, চোখ দেখতে সুন্দর লাগবে পাশাপাশি নিচের দিকে নেমে আসবে না। হালকা ব্রাশের সাহায্যে চোখের যেখানে আপনি কাজল পড়েছেন সেই তলার অংশতে আপনাদের আইশ্যাডো লাগিয়ে নিতে হবে।

  • কিভাবে কাজল পরলে চোখ দেখতে খুব বড় লাগবে?

কিছু কিছু মহিলাদের কিন্তু চোখ বড় লাগলে দেখতে খুবই ভালো লাগে। আপনারা চাইলে খুব সহজেই কাজলের সাহায্যে এই আর্টিফিশিয়াল সৌন্দর্য কিন্তু ক্রিয়েট করতে পারেন। তার জন্য আপনাদের একটি হোয়াইট কালারের কাজল নিয়ে চোখের তলার অংশে হালকা করে ওয়াটার লাইনে লাগিয়ে নিতে হবে।

তারপর ধীরে ধীরে প্রথমবারে যেভাবে কাজল পড়েছিলেন সেরকম ভাবেই একটু ডিপ করে কাজল পড়তে হবে।

তারপর চোখের উপরের পাতায় এবং নিচের পাতায় যেরকম ভাবে আইলাইনার লাগান ঠিক তেমনভাবেই হালকা করে টেনে দিন।এই কাজে আপনারা একটি ইয়ার বাডসের সাহায্য নিতে পারেন।যদি কোন জায়গায় অতিরিক্ত কাজে লেগে যায় তা কিন্তু এই বাডসের সাহায্যে সহজে পরিষ্কার করা যাবে।

ব্যাস এভাবে যদি আপনারা কাজল পড়ে নেন তাহলে কিন্তু দেখবেন আপনাদের চোখ আগের তুলনায় অনেকটাই বড় দেখাচ্ছে।

সবশেষে বলবো যারা কাজল করতে খুব বেশি রকমের ভালোবাসেন তারা কিন্তু নিজেদের ব্যাগে সর্বদা একটা ইয়ার বার্ডস রাখতে ভুলবেন না। এটার সাহায্যে খুব সহজেই কাজল নিচে নেমে গেলে বা ছড়িয়ে পড়লে ঠিক করে নেওয়া যায়।

Back to top button