তামার পুরোনো বাসন মাত্র কয়েক মিনিটেই হবে নতুনের মতো চকচকে, শুধুমাত্র ট্রাই করুন এই গোপন ট্রিকস

নিজস্ব প্রতিবেদন: আমাদের প্রত্যেকের বাড়িতেই কিন্তু কম বেশি তামার নানান ধরনের বাসনপত্র রয়েছে। তবে পুজো পার্বণ ছাড়া সাধারণত এই সমস্ত বাসন কিন্তু বের করা হয় না। যার দরুন স্বাভাবিকভাবেই এই সমস্ত বাসন গুলি বছরের পর বছর কোন জায়গায় থেকে রীতিমত দাগ যুক্ত হয়ে পড়ে। সাধারণত এই তামার তৈরি বিভিন্ন জিনিস পরিষ্কার করার কাজে মানুষ তেতুলের ব্যবহার করে থাকেন। তবে এই তেতুলের ব্যবহার কিন্তু অত্যন্ত সময় সাপেক্ষ।

যদি আপনার বাড়িতে অত্যন্ত বেশি পরিমাণে তামার বাসনপত্র থাকে সেক্ষেত্রে কিন্তু তেতুল দিয়ে পরিষ্কার করতে অনেকটাই সময় লেগে যাবে। আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা তাই আপনাদের সাথে এমন একটি পদ্ধতি শেয়ার করে নেব যার সাহায্যে অত্যন্ত অল্প সময়ের মধ্যে সহজেই আপনারা তামার বাসন পরিষ্কার করে নিতে পারেন।। চলুন তাহলে আর দেরি না করে আমাদের আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনটি শুরু করা যাক।

তামার বাসনপত্র পরিষ্কার করার জন্য প্রয়োজনীয় উপকরণ:

তামার তৈরি বিভিন্ন বাসনপত্র পরিষ্কার করার কাজে কিন্তু আপনাদের বেশ কয়েকটি জিনিস প্রথমেই সংগ্রহ করে নিতে হবে। তবে সাধারণত এই সমস্ত জিনিস গুলি কিন্তু আমাদের বাড়িতেই বেশিরভাগ সময় মজুদ থাকে।।
নিম্নে উপকরণ গুলি উল্লেখ করা হলো—

১) পাতিলেবুর রস হাফ চামচ
২) সাদা নুন হাফ চামচ
৩) ভিনিগার হাফ চামচ এবং
৪) স্কচবাইট

তামার বাসনপত্র পরিষ্কার করার উপায়:

তামার যে পাত্র বা বাসন আপনারা পরিষ্কার করতে চান সেটাকে প্রথমে একটি কাপড় দিয়ে মুছে নিতে হবে। তারপরে এই পাত্র বা বাসনটির গায়ে আপনাদের ভালো করে ভিনেগার লাগিয়ে নিতে হবে। এরপর মোটামুটি ১০ মিনিটের জন্য এই অবস্থায় ফেলে রাখুন। নির্দিষ্ট সময় অতিক্রান্ত হয়ে গেলে স্কচ বাইট ব্যবহার করে হালকা হাতে আপনাদের এটা ঘষা শুরু করতে হবে। এই সময়ের মধ্যে দেখবেন ধীরে ধীরে ময়লা কিন্তু হালকা হয়ে এসেছে। এরপর আপনাকে লেবুর রস আর লবন একসঙ্গে মিশিয়ে নিতে হবে।

এই মিশ্রণের মধ্যে আবারো স্কচ বাইট লাগিয়ে আলতো করে সমস্ত বাসন কিন্তু আপনারা ঘষে নিন। মোটামুটি দুই থেকে তিন মিনিট এভাবে মেজে নিলেই কিন্তু দেখবেন ধীরে ধীরে সমস্ত দাগ দূর হয়ে গিয়েছে। দেখলে মনেই হবে না, বাসন পুরনো। পরিষ্কার জলে ধুয়ে নিলেই দেখবেন এগুলি একেবারে নতুন বাসনের মতন চকচক করছে।

আজকের এই বিশেষ টিপস আপনাদের কেমন লাগলো তা জানাতে অবশ্যই ভুলবেন না। এই ধরনের কোন টিপস আপনাদের জানা থাকলে তা অবশ্যই আমাদের পাঠকদের সাথে শেয়ার করে নিতে পারেন।

Leave a Comment