“আমি তখনও বোকা ছিলাম! এখনও তাই রয়ে গেছি!”, রান্নাঘরের ৫০০০ পর্ব সেলিব্রেশনে নিজেকে বোকা বলে দাবি সুদীপার

নিজস্ব প্রতিবেদন: বাংলা টেলিভিশন ইন্ডাস্ট্রিতে টিআরপির অভাবে বিগত কয়েকদিন ধরেই কিন্তু প্রচুর সিরিয়াল বন্ধ হয়ে গিয়েছে। এমনকি সিরিয়াল বন্ধের সময় তার বয়স বা সময় কোন কিছু নেই কিন্তু মাথাব্যথা ছিল না চ্যানেল কর্তৃপক্ষের। টিআরপি না থাকলে একদিকে যেমন দুই বছরের পুরনো সিরিয়াল বন্ধ হয়ে গিয়েছে ঠিক তেমন ভাবেই বন্ধ হয়েছে মাস দুয়েক আগে শুরু হওয়া ধারাবাহিক।

তবে গত সতেরো বছর ধরে একইভাবে দর্শক মহলে জনপ্রিয় থেকে সম্প্রতি ৫০০০ এপিসোড পূর্ণ করেছে জি বাংলার অন্যতম নন ফিকশন শো ‘রান্নাঘর’। প্রসঙ্গত দীর্ঘ সময় ধরে এই শো সঞ্চালনা করে আসছেন সুদীপা চট্টোপাধ্যায়। যদিও বিবাহ পূর্ববর্তী তার পদবী ছিল মুখোপাধ্যায়। সম্প্রতি ৫০০০ এপিসোড পূর্ণ হওয়ার আনন্দে সেলিব্রেশনে মেতে উঠেছিল ‘রান্নাঘর’এর সম্পূর্ণ টিম।

কেক কাটা থেকে শুরু করে চিংড়ি ইলিশ মাছ দিয়ে রীতিমত জম্পেশ খাওয়া-দাওয়ার আয়োজন করা হয়। পাশাপাশি অনেক মজাদার ঘটনাও ঘটে। ‘রান্নাঘর’এর ৫০০০ পর্বের উপলক্ষ্যে একটি নামী সংবাদমাধ্যমের তরফ থেকে সুদীপার সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছিল। সঞ্চালিকা বলেন, ‘আমরা যে ৫০০০ পর্ব ছুঁয়ে ফেলেছি তা নিজেরাই জানতাম না। সম্পাদক মনে করিয়েছেন’।

তারপরেই শো শুরুর অনেক অজানা গল্পের কথা তিনি জানান। সুদীপা বলেন, “বাড়ি থেকে শিলনোড়া, মিক্সি, বটি নিয়ে আমরা প্রথম পর্বের শ্যুটিং করেছিলাম। কোনও তারকাই আসতে চাইতেন না। আমাদের তখন কেউ গুরুত্বই দিতেন না। তবে সেই সময় যারা আমাদের মেক আপ, হেয়ার করতেন, তাঁরা এখন অনেক উঁচুস্তরে পৌঁছে গিয়েছেন। সাধারণ মানুষরাও তারকাদের মতো টিভিতে আসবেন, নিজেদের মনের কথা বলতে পারবেন। আমাদের মধ্যে সেই ভাবনাই কাজ করছিল”।

উল্লেখ্য এই কয়েক বছরে সঞ্চালিকা সুদিপার জীবনে এসেছে আমুল পরিবর্তন।। শুধুমাত্র বিয়ে করে সংসারী নয়, মা হয়েছেন সুদীপা। এই প্রসঙ্গে সুদিপার বক্তব্য, “ছেলের জন্মের পর যদিও ২ বছরের একটা বিরতি হয়েছিল। তবে আমার ধারণা অপাদির (অপরাজিতা আঢ্য) হাত ধরে কেউ প্রশ্ন করতে পারবেন না তোমার বর কেমন আছে? কিন্তু আমায় পারবেন। কারণ প্রত্যেকে আমার মধ্যে একটা বাড়ির মেয়ের মতো গন্ধ পায়”।

এরপর সবশেষে হাসতে হাসতেই একটা বেশ আলাদা ধরনের কথা বলেন সুদীপা চ্যাটার্জি। তিনি জানান, “এত বছরে নিজের মধ্যে একটা জিনিস আমি লক্ষ্য করেছি যে আমি তখনও যেমন বোকা ছিলাম, এখনও কিন্তু ঠিক তেমনটাই রয়ে গিয়েছি”। উল্লেখ্য বর্তমানে পরবর্তী কিছু এপিসোডের শুটিং শেষ করে বাড়ির পুজোর কাজে ব্যস্ত রয়েছেন তিনি। লক্ষ্মীপূজার পরেই আবারো শুটিং ফ্লোরে দেখা যাবে তাকে।

Back to top button