জানেন আদতে পারফেক্ট চা কিভাবে বানাতে হয়? জেনে নিন চা বানানোর এই পারফেক্ট রেসিপি

নিজস্ব প্রতিবেদন: চা হলো আমাদের নিত্য দিনের সঙ্গী। তাই এটি তৈরি করার সময় আপনাদের কিন্তু কয়েকটি বিষয় মাথায় রাখতে হবে যাতে ভালোভাবে পারফেক্ট চা খুব সহজেই তৈরি করা যেতে পারে। চায়ের স্বাদ যদি পরিবর্তিত হয় তাহলে কিন্তু মন অনেকটাই খারাপ হয়ে গিয়ে থাকে। আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনের মাধ্যমে আমরা আপনাদের সঙ্গে পারফেক্ট পদ্ধতিতে তিন ধরনের চা তৈরি সম্পর্কে আলোচনা করতে চলেছি।

আপনারা যারা নতুন গৃহিণী রয়েছেন অথবা যারা পুরনো রয়েছেন অথচ পারফেক্ট ভাবে চা বানানো জানেন না তারা অবশ্যই কিন্তু আমাদের আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনটি ভুল করেও মিস করবেন না।এই প্রতিবেদন থেকে নিঃসন্দেহে আপনারা এমন অনেক ভালো তথ্য পাবেন যা হয়তো আপনাদের কাজে লাগতে পারে। আজকে যে উপায়গুলির কথা আলোচনা করব তাতে চায়ের কালার আর স্বাদ দুটোই কিন্তু শেষ পর্যন্ত পারফেক্ট অবস্থায় থাকবে। চলুন তাহলে আর দেরি না করে আমাদের আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনটি শুরু করা যাক।

১) আদা চা তৈরির পদ্ধতি:

এই চা তৈরি করতে গিয়ে আমরা প্রায় সময় অনেক ভুল করে থাকি। যাইহোক এই চা তৈরি করতে গেলে আপনাদের প্রথমেই একটা কাপের দেড় কাপ পরিমাণ জল নিয়ে নিতে হবে। এরপর পাত্রে এই জল ঢেলে গ্যাস অন করে দিন। হাফ চামচ পরিমাণ আদা বাটা নিয়ে এই জলের মধ্যে মিশিয়ে দিন। আদাটাকে জলের মধ্যে দেওয়ার পর এক মিনিট ভালো করে ফুটিয়ে নিতে হবে।

এরপর যে কাপের মধ্যে আপনারা চা ছাকবেন সেটাতে চিনি দিয়ে দিতে হবে। মিষ্টির পরিমাণ আপনারা নিজেদের পছন্দ মতন ব্যবহার করতে পারেন। এরপর কিছুটা পরিমাণ চা পাতা নিয়ে সেটাকে ছাকনির উপরে রেখে দিন।ছাকনিটিকে চায়ের কাপের উপরে বসিয়ে উপর থেকে আদা মেশানো জল ঢালতে থাকুন। দেখবেন খুব সুন্দর লিকার তৈরি হয়ে গিয়েছে। ভালো করে চামুচ দিয়ে মিশিয়ে নিলে কিন্তু তৈরি হয়ে যাবে একেবারে পারফেক্ট পদ্ধতিতে আদা চা। এভাবে আদা চা তৈরি করে খেলে ভীষণ উপকার পাবেন এবং এটা কিন্তু স্বাদে আর গন্ধে খেতে অপূর্ব হবে।

২) লেবু চা তৈরির পদ্ধতি:

দুধ চা বা লিকার চায়ের বাইরে লেবু চা কিন্তু মানুষের ভীষণ রকমের পছন্দ। একই রকম ভাবে এই ক্ষেত্রেও একটি পাত্রের মধ্যে আপনাদের মোটামুটি দেড় কাপ পরিমাণ জল নিয়ে তাতে সামান্য এলাচ আর গোলমরিচ দিয়ে দিতে হবে। লেবু চায়ে যেহেতু চিনির পরিমাণ একটু বেশি হবে তাই দেড় চামচ বা তার থেকে সামান্য বেশি দিতে পারেন।।

এরপর ওই জলের মধ্যেই এক চামচের তিনভাগের একভাগ পরিমাণ আপনারা চা-পাতা মিশিয়ে দিন। এবার খুব ভালো করে ফুটিয়ে আপনাদের লিকার তৈরি করে নিতে হবে। সবশেষে যে কোন ছাকনির সাহায্যে ভালো করে ছেঁকে দিলেই কিন্তু আপনারা চা পরিবেশন করতে পারবেন। যেহেতু এটা লেবু চা, তাই অবশ্যই কিন্তু চায়ের কাপের মধ্যে সবশেষে কয়েক ফোটা লেবুর রস মিশিয়ে দিতে ভুলবেন না।স্বাদ আর রঙের পরিবর্তন আপনারা নিজেই বুঝতে পারবেন।

৩) মসলা চা তৈরি করার পদ্ধতি:

মসলা চা তৈরি করার জন্য একটি ফ্রাইং প্যানের মধ্যে আপনাদের নিয়ে নিতে হবে একটি তেজপাতা, কয়েক টুকরো লবঙ্গ আর এলাচ, গোটা গোলমরিচ আর শুকনো আদা। এরপর ৩০ সেকেন্ড সুকনো খোলায় রোস্ট করে নেওয়ার পর এটাকে আলাদা একটি পাত্রে তুলে রেখে দিন। কিছুক্ষণ পর এটি ঠান্ডা হয়ে গেলে মিক্সিং জারের মধ্যে নিয়ে গুঁড়ো করে ফেলুন। মসলা তৈরি হয়ে গেলে ওই একই কাপের দেড় কাপ পরিমাণ জল আপনারা গ্যাসে বসিয়ে দিন।। জল হালকা ফুটতে শুরু করলে আপনারা নিজেদের পছন্দ অনুযায়ী চিনি ব্যবহার করতে পারেন। এরপর আপনাদের একই চামচের সমপরিমাণ চা-পাতা ব্যবহার করতে হবে।

একটু বেশি পরিমাণে চা পাতা ব্যবহার করবেন যেহেতু এটা মশলা চা। কিছুক্ষণ নাড়াচাড়া করার পর এই চায়ের ক্ষেত্রে আপনাদের মসলা যোগ করে দিতে হবে। একদম ফুটে ওঠার ঠিক আগের অবস্থায় আপনারা প্রথমে যে মসলা তৈরি করে রেখেছিলেন সেটাকে এর মধ্যে মিশিয়ে দিতে হবে। এবার এর মধ্যে আপনাদের একটু থেঁতো করা আদা দিয়ে দিতে হবে।

সবশেষে এতে যোগ করে দিন পৌনে এক কাপ মতন লিকার দুধ। চাইলে আপনারা কিন্তু গুঁড়ো দুধকে গরম জলের মধ্যে গুলেও ব্যবহার করতে পারেন। লিকুইড দুধ ব্যবহার করার পর কিছুক্ষণ মিশিয়ে ফুটে উঠলে আপনারা ছাকনির সাহায্যে চা ছেঁকে নিয়ে পরিবেশন করতে পারেন।

Back to top button