খুব হালকা ওজনের মধ্যে আধুনিক ডিজাইনের সোনার বালার ৭টি দুর্দান্ত কালেকশন দেখে নিন

নিজস্ব প্রতিবেদন: সম্প্রতি কিছুদিন আগেই পেরিয়ে গিয়েছে দুর্গাপুজো। তবে দুর্গাপূজো শেষ হয়ে যাওয়া মানেই কিন্তু এমনটাই নয় যে উৎসবের মরশুম শেষ হয়ে গিয়েছে। সামনেই রয়েছে ধনতেরাস এবং দীপাবলীর মতন উৎসব। এছাড়া আগামী মাস থেকেই ধীরে ধীরে শুরু হয়ে যাবে বিয়ের সিজন এবং তার প্রস্তুতি। এমতাবস্তায় সাধারণ মানুষের মধ্যে কিন্তু গয়নার চাহিদা অত্যন্ত বেশি রকমের বেড়ে গিয়েছে।

আজকের এই বিশেষ প্রতিবেদনে আমরা আপনাদের জন্য নিয়ে এসেছি হালকা ডিজাইনের মধ্যে সোনার কিছু বালার ডিজাইন যা আপনারা বিভিন্ন অকেশন থেকে শুরু করে রেগুলার ইউজ সবকিছুতেই ব্যবহার করতে পারবেন। চলুন তাহলে আর দেরি না করে আমাদের আজকের এই প্রতিবেদনের মূল পর্বে যাওয়া যাক।

বিভিন্ন ওজনের মধ্যে সোনার কিছু বালার ডিজাইন:

১) আজকের এই প্রতিবেদনের শুরুতেই যে ব্রেসলেট বা বালাটি আপনাদের দেখাতে চলেছি সেটা আড়াই ভরি থেকে শুরু হচ্ছে। খুব সুন্দর ফ্লাওয়ার ডিজাইনে এটা তৈরি করা হয়েছে।

২) এবার যে কালেকশনটি আপনারা দেখতে চলেছেন সেটা খুবই ইউনিক একটা কালেকশন। অনেকটা গোল বলের মতন করে উপরের অংশটাতে এখানে ডিজাইন করা রয়েছে। তার উপরে খুব সুন্দর ছোট ছোট ফুলের কাজ করা। কম বয়সী মেয়েদের হাতে কিন্তু এই কালেকশনটা দারুন মানাবে।

৩) যে কালেকশনটি আপনাদের দেখাতে চলেছি সেটা কিন্তু খুব সুন্দর একটা ডিজাইন। এই বালাটি বা ব্রেসলেটটির মধ্যে কিন্তু সোনার সাথে সাথে আলাদা করে স্টোনের কাজ করা রয়েছে যা এটাকে আরও আকর্ষণীয় করে তুলেছে। 

৪) এবার যে ব্রেসলেটের কালেকশনটি আপনারা দেখতে চলেছেন সেটাতে খুব সুন্দর সিংহের মুখের কাজ করা রয়েছে। খুবই ইউনিক একটা ডিজাইন। দুটো মুখ আলাদা করে এটাতে লাগানো রয়েছে।।

৫) এবার যে কালেকশনটি আপনাদের দেখাতে চলেছি সেটা খুব সুন্দর রোজ গোল্ডের একটা কালেকশন। এর পেছনের দিকটাতে খুব সুন্দর চেনের মতন করে করা রয়েছে। সামনের দিকে রয়েছে ফুলের ডিজাইন।

৬) আমাদের প্রতিবেদনের 6 নম্বরে আপনারা যে ব্রেসলেটের ডিজাইনটি দেখছেন সেটাতে আলাদা করে তিনটে অর্কিডের মতন ডিজাইন এর ফুল বসানো রয়েছে। একটাই মুখ রয়েছে যা ব্রেসলেটটিকে খুবই আকর্ষণীয় করে তুলেছে।

৭) যারা ব্রেসলেট ডিজাইনের বালা না নিয়ে একেবারে সিম্পল বালা নিতে চান তারাও কিন্তু এই কালেকশনটা ট্রাই করে দেখতে পারেন। খুব সুন্দর বলের মতন ডিজাইনের ঝিলে কাটা বালাটি আপনারা সহজেই ট্রাই করে দেখতে পারেন। এটা কিন্তু রেগুলার ইউজের জন্যও একেবারে আদর্শ।

সবশেষে পাঠকদের উদ্দেশ্যে জানিয়ে রাখি এগুলি শুধুমাত্র গয়নার ডিজাইন। অর্থাৎ এর মধ্যে যেকোন ডিজাইন পছন্দ করে আপনারা নিকটবর্তী দোকান বা শোরুম থেকে খুব সহজেই তা বানিয়ে নিতে পারবেন। এই গয়না গুলি কিন্তু যে কোন ভাল কারিগরের কাছেই বানিয়ে নেওয়া যাবে। যেহেতু প্রতিদিন সোনার দর আলাদা হয়ে থাকে তাই আমরা আর আজকের এই প্রতিবেদনে আলাদা করে গয়নার দাম উল্লেখ করলাম না। গহনা বানাতে যাওয়ার আগে অবশ্যই কিন্তু আপনারা দৈনন্দিন সোনার দর যাচাই করে নেবেন এবং হলমার্ক দেখে নেবেন। নয়তো পরে সমস্যায় পড়তে পারেন।

Back to top button