“ইন্ডাস্ট্রির রাজনীতি বুঝতে পারেনি অভিষেক”, বিস্ফোরক মন্তব্য তাপস পালের স্ত্রী নন্দিনী পালের

নিজস্ব প্রতিবেদন: প্রায় মাস পাঁচেক সময় অতিক্রান্ত হয়ে গিয়েছে জনপ্রিয় অভিনেতা অভিষেক চ্যাটার্জির মৃত্যুর পরে। তবে এখনো পর্যন্ত কিন্তু শোকস্তব্ধ হয়ে রয়েছেন তার ভক্তরা। চলতি বছরে তার বাড়ির পুজো বন্ধ হয়ে গিয়েছে বেশ কিছুদিন আগেই জানিয়েছিলেন অভিনেতার স্ত্রী। অভিষেকের মেয়ে ডলকে নিয়ে কোথাও চলে যাবেন তিনি এমনটাই জানিয়েছিলেন।

অভিনেতার মৃত্যুর পরে ইন্ডাস্ট্রির অনেকেই কিন্তু তার উদ্দেশ্যে নানান কথা স্মৃতিচারণ করে শোক জ্ঞাপন করেছিলেন। এবারে সেই সমস্ত ব্যক্তিদের মধ্যেই একজনের ভিডিও ভাইরাল হয়ে উঠে এসেছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। তিনি হলেন তাপস পালের স্ত্রী নন্দিনী পাল। প্রসঙ্গত নন্দিনী পাল নিজেও কয়েক বছর আগে স্বামী তাপস পাল কে হারিয়েছেন। এমতাবস্থায় আচমকাই অভিষেকের মৃত্যু কিন্তু নন্দিনীর কাছে একটা বড় ধাক্কাই বলা যায়।

ইন্ডাস্ট্রিতে প্রথম থেকেই মিঠুদা নামে পরিচিত ছিলেন অভিষেক। কিন্তু নন্দিনী তাকে ডাকতেন মিঠাই বলে। রক্তের সম্পর্ক না থাকলেও অভিষেক কিন্তু ছিলেন তাপস পালের ভাই। যে মুহূর্তে অভিষেকের প্রথম ছবি পথভোলার শুটিং চলছিল সেই সময় তাপস পালের স্ত্রী নন্দিনী ছিলেন অন্তঃসত্ত্বা। তারপর সেই সেটেই নন্দিনীর সঙ্গে আলাপ হয় অভিষেকের।

এরপর কখন যে নন্দিনী আর তাপস পালের পরিবারের অংশ হয়ে উঠেছিলেন অভিষেক এটা কেউই বুঝতে পারেননি। নন্দিনী পাল যখন তার মেয়ে সোহিনীকে স্কুল থেকে আনতে যেতেন তখন অনেক সময় তার সঙ্গী হতেন অভিষেক। এমনকি স্কুলে ছুটির দেরি হলেও অপেক্ষা করতেন তারা। টলিউডের এক নামি প্রযোজকের মেয়ের বিয়েতে নিমন্ত্রণ ছিল নন্দিনীর। সেদিন আচমকাই তার আদরের মিঠাই তার কাছে আবদার করে বসে, রান্না করে খাওয়াতে হবে। এই কথা কিন্তু ফেলতে পারেননি নন্দিনী। নিজের হাতে কাতলা মাছের ঝোল রান্না করে খাইয়েছিলেন অভিষেককে।

বেশি মসলাদার রান্না পছন্দ করতেন না অভিষেক। নিজের ভাইয়ের মতন মিঠাইয়ের জন্য কিন্তু তার পছন্দ অনুযায়ী রান্না করতেন তাপস পালের স্ত্রী নন্দিনী পাল। আজ অনেক বছর পেরিয়ে এসে নন্দিনীর মনে হয় যে অভিষেক আর তাপস পাল দুজনেই কিন্তু ছিলেন অত্যন্ত আবেগপ্রবণ। প্রথম থেকেই ইন্ডাস্ট্রিতে কিন্তু চলতে শেখেননি তারা যার ফলস্বরূপ ইন্ডাস্ট্রির রাজনীতি থেকে তারা দূরেই থেকে গিয়েছিলেন।

তাপস পাল আর অভিষেক প্রসঙ্গে নন্দিনীর বক্তব্য,“কখনোই কাজের জন্য তাদেরকে কিন্তু আপোষ করতে দেখা যায়নি। মিষ্টি কথায় কাউকে পেছন থেকে ছুরিও মারেননি তারা। যথেষ্ট প্রভাবশালী হলেও তারা কিন্তু কখনোই নিজেদের জীবনে প্রভাব খাটাতে চাননি। ফলে রাজনীতি তাদেরকে প্রতি ভাগেই গ্রাস করে নিয়েছিল”।অভিষেক যদিও শেষ পর্যন্ত ফিরে আসতে পেরেছিলেন। জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত কিন্তু তিনি অভিনয় করে গিয়েছেন।

তবে কখনোই আর ফিরে আসতে পারেননি, তাপস পাল। আজ কিন্তু দুজনেই আর ইহলোকে নেই। রয়ে গিয়েছে শুধুই তাদের স্মৃতি। অনেকের মতন নিজের এই বক্তব্যের মাধ্যমে নন্দিনী ও তুলে ধরেন অভিষেকের প্রকৃত মূল্যায়নের কথা, প্রতিভাবান হওয়া সত্বেও যোগ্য সম্মান না পাওয়ার কথা। যদিও নন্দিনী পালের এই প্রতিক্রিয়া ভাইরাল হওয়ার পরে বেশিরভাগ মানুষই কিন্তু মনে করছেন, এই কথাগুলো অভিষেকের জীবিতকালে যদি সামনে আসত তাহলে আজ অভিনেতার সাথে হয়তো বঞ্চনা করা হতো না।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button