নিউজবিনোদন ও লাইফ স্টাইল

রাখীর দিনে বাড়িতে দাদার সঙ্গে খু’ন’সুটিতে ব্যস্ত সকলের প্রিয় অরুনীতা! বোনের ডাকনাম ফাঁস করলেন দাদা অনীশ! দারুন ভাইরাল ভিডিও।

নিজস্ব প্রতিবেদন :- বাঙালির উৎসব রাখি বন্ধন । এবং একজন বাঙালি হয়ে কি এই দিনে পরিবার থেকে দূরে থাকা যায় ? একদমই যায়না । এবং সেই মতন বাঙালি হয়ে পরিবার থেকে দূরে থাকতে পারলেন না বিখ্যাত গায়িকা । ইন্ডিয়ান আইডল সিজন ১২ এর সুবাদে এখন গোটা দেশ তাকে চেনেন না । ব বনগাঁ তো দূরের কথা এমনকি দেশের প্রতিটি প্রান্তে ছড়িয়ে পড়েছে ওর নাম । দীর্ঘ দশ মাস ধরে চলতে থাকা রিয়েলিটি শো এর শু-টিং কাজ সেরে রবিবার দিন নিজের বনগাঁর বাড়িতে পা রাখলেন অরুনিতা।

পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের উত্তর ২৪ পরগনা জেলার বনগাঁয় জন্ম অরুনিতা-র। তাঁর বাবা অবনী ভূষণ কাঞ্জিলাল পেশায় একজন শিক্ষক। এছাড়া মা শ্রাবণী কাঞ্জিলাল ও দাদা অনীশ কাঞ্জিলালকে নিয়ে তাঁর পরিবার। মাত্র ৮ বছর বয়স থেকে গানে হাতে খড়ি অরুনিতার। তাঁর মায়ের গানের শখ ছিল প্রথম থেকেই। সেই সূত্রেই শুরু অরুনিতার গান গাওয়া। অরুনিতার মামা হলেন পেশায় একজন সঙ্গীত শিক্ষক। তাঁর কাছেই ছোট থেকে গান শিখতে শুরু করেন অরুনিতা।

বনগাঁর কুমুদিনী গার্লস হাই স্কুল থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করে এখন রীতিমতো তারকা তিনি।২০১৩ সালে বাংলার সবথেকে বড় মিউজিক রিয়েলিটি শো-এ মাত্র ১৩ বছর বয়সে চ্যাম্পিয়ন হয় অরুনিতা। এরপরে আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাঁকে। দেশের অনেক স্বনামধন্য সঙ্গীত শিল্পীদের সঙ্গে একই মঞ্চে অনুষ্ঠান করেছেন তিনি । সম্প্রতি ইন্ডিয়ান আইডলের দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছেন তিনি । এবং গোটা বাংলার মুখ উজ্জ্বল করেছেন তিনি এমনটা বলা যেতে পারে ।

তবে তার একটি নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেল রয়েছে। ইতিমধ্যে স্যার ইউটিউব চ্যানেলের সাবস্ক্রাইবার চার লক্ষ। তবে এবার বাড়িতে এসেই দাদার সাথে খুনসুটিতে মেতে সে অরুনিতা দাদার ঘাড়ে চেপে একটি ছবি তোলা হয়েছে ছবিটি শেয়ার করেছে তার দাদা অনিস এবং তার সাথে সাথে সকলের সামনে তার বোনের ডাকনাম তুলে ধরেছে ছবিটি শেয়ার করার পর তিনি লিখেছেন পুকু অরুনিতা সেই ছবিতে কমেন্ট করেছে ‘পুকি টুকি টুকি’ ।

এক সংবাদমাধ্যমে অভিনেতা জানান যে, ‘ঘুমোনোর সময় অনেক পাবো, ১০ মাস পরিবারের থেকে দূরে ছিলাম, এখন সব সময়টুকু ওদের সঙ্গে কাটাতে চাই। আজকের দিনটা দাদাদের সঙ্গে সেলিব্রেট করতে চাই। বাড়ির মতো অনুভূতি অন্য কিছু হতে পারে না। কাল থেকে সব লোকজন আসছেন, আর্শীবাদ করছেন। খুব ভালো লাগছে’। এদিন দাদা, অণীশের হাতে রাখি বেঁধেছেন অরুণিতা, দাদাও বোনকে রাখি পরিয়েছেন। উপহার হিসাবে কী পেলেন? হাসি মুখে অরুণিতা বললেন, ‘দাদা আজ চকোলেট দিয়েছে, বলল বাকি গিফট আসছে সব। তবে এইসব উপহার একদম জরুরি নয় আমার কাছে। দাদা পাশে থাকাটাই জরুরি’।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button