স্বাস্থ্যসাথীর কার্ড ছাড়াই কি করা যাবে লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্পে আবেদন? জানুন বিস্তারিত।

স্বাস্থ্যসাথীর কার্ড ছাড়াই কি করা যাবে লক্ষীর ভান্ডার প্রকল্পে আবেদন? জানুন বিস্তারিত।

নিজস্ব প্রতিবেদন :- ফেরার একবার দুঃ-সংবাদ উঠে এলো লক্ষী ভান্ডার প্রকল্প কেন্দ্র করে । মানুষ যে আশায় ছিল সে আশা রীতিমতো ভঙ্গ হয়ে গেল যখন থেকে শুরু হল দুয়ারে সরকার কাম্প । একদম ঠিক শুনেছেন ।বিস্তারিতভাবে কি ঘটেছে তা আপনাদের সামনে তুলে ধরব আমরা আজকের এই প্রতিবেদনের মাধ্যমে । কিভাবে আবেদন পত্র পূরণ করবেন কিভাবে জমা দেবেন লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পে আমরা আজকের এই প্রতিবেদনের মাধ্যমে তাই সম্পূর্ণ প্রতিবেদনটি পড়ার অনুরোধ রইল ।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের অনুপ্রেরণায় চালু করা হয়েছে এই লক্ষী ভান্ডার প্রকল্প । কিন্তু লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পের জন্য স্বাস্থ্য সাথী কার্ড বাঞ্ছনীয় এমনটা ঘোষণা করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । পরবর্তী ক্ষেত্রে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের মাধ্যমে জানা যায় যে স্বাস্থ্য সাথী কার্ড না থাকলে হবে তার জন্য প্রথমে আবেদনকারীকে স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এর জন্য আবেদন করতে হবে । এবং পরবর্তী ক্ষেত্রে তারা আবেদন করতে পারে এই লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পের জন্য ।

কিন্তু তারা সরকারকে যে সমস্ত সরকারি আধিকারিক হয়েছে তারা স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দিচ্ছেন যে স্বাস্থ্য সাথী কার্ড যদি না থাকে তাহলে কিন্তু কেউ আবেদন করতে পারবেন না । এবার আমরা দেখে নেবো যে কিভাবে আবেদন করবেন । দুয়ারের সরকার ক্যাম্পে গিয়ে লক্ষী ভান্ডার আবেদন পত্রটি আপনারা সংগ্রহ করুন । আবেদনপত্র সংগ্রহ করুন তারপরে সে আবেদনপত্রটি হাতে পাওয়ার পর উপরের ডান দিকে দেখবেন লেখা আছে এপ্লিকেশন নাম্বার ।

সে জায়গায় আপনার করণীয় কিছু নেই । এখানে যে আধিকারিক আপনার আবেদনপত্র জমা নেবে সেই আধিকারিক এই ধরনের লেখাটা লিখবে । এরপর আপনার কাছে জানতে চাওয়া হবে যে আপনি কোন কাস্টের । তার পাশাপাশি আপনি কোন কাজ করেন কিনা আপনার বাড়ির ঠিকানা গ্রামে থাকলে কোন গ্রামে ইত্যাদি যাবতীয় তথ্য । নিচে একটা টেবিল দেওয়া আছে সেখানে আপনি পরিবারের মহিলার নাম লিখতে পারেন সর্বপ্রথম ।

তার সাথে সাথে লিখতে হবে তার জন্ম তারিখ রেশন কার্ডের নাম্বার এবং তার নিচে পরিবারের সকল সদস্যের নাম লিখে একই পদ্ধতিতে জন্ম তারিখ এবং রেশন কার্ডের নাম্বার লিখে দিতে হবে ।প্রসঙ্গত উল্লেখ্য প্রতিটি আবেদনপত্রে উপরে একটি বিশেষ ইউনিক নাম্বার দেওয়া থাকবে । যে নাম্বারটি সরকারি পোর্টালে নথিভুক্ত করা থাকবে এই ইউনিক নাম্বার ছাড়া কোন আবেদনপত্র গ্রহণযোগ্য হবে না ।


Leave a Reply

Your email address will not be published.