দুধে জল মেশানো আছে কিনা এক মিনিটে তা বুঝে যাওয়ার দারুন কার্যকরী উপায়, রইলো দারুণ পদ্ধতি!

দুধে জল মেশানো আছে কিনা এক মিনিটে তা বুঝে যাওয়ার দারুন কার্যকরী উপায়, রইলো দারুণ পদ্ধতি!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- শারীরিক বিকাশ হোক বা মানসিক বিকাশ দুটো ক্ষেত্রে অসামান্য ভূমিকা পালন করে চলেছে একটিমাত্র তরল পানীয় খাবার সেটি হল দুধ । দুধ এখন প্যাকেটজাত হিসেবে পাওয়া যায় বেশিরভাগ ক্ষেত্রে । গরুর দুধ গ্রামগঞ্জে ছাড়া তেমন ভাবে আর পাওয়া যায় না । গরুর দুধের পাশাপাশি অনেকে আবার মোষের দুধ খেতে ভালোবাসে । কিন্তু এই প্রতারণার যুগে দাঁড়িয়ে আপনি কিভাবে নিশ্চিত হচ্ছেন যে আপনি প্রতিদিন যে দুধ সেবন করছেন বা আপনার শিশুকে যে দুধ খাওয়াচ্ছেন সেটা একদম খাঁটি দুধ ।

বিক্রেতারা হয়তো আপনাকে আশ্বস্ত করছে এটা বলে তারা আপনাকে খাঁটি দুধ দিচ্ছে । কিন্তু এর পিছনে যে রয়েছে গল্প সেটি হয়তো আপনি টের পাচ্ছেন না। যার ফলে প্রতিনিয়ত আপনি বিষ ঢেলে দিচ্ছেন আপনার নিজের শরীরে । বাজারে এখন প্রচুর পরিমাণে অসাধু ব্যবসায়ীদের বাড়বাড়ন্ত দেখা যাচ্ছে । নকল ডিম থেকে শুরু করে দুধের মধ্যে জল দেওয়া সব কিছুই তাদের নখদর্পণে । এবং প্রতিনিয়ত মানুষ বোকা হচ্ছে তাদের কাছে ।

ডেকে আনছে টাকা দিয়ে বিপদ তাই সময় থাকতে সাবধান হয়ে যান । এবং নিজের শরীরের প্রতি যত্নশীল হোন । আজকের এই প্রতিবেদনটি মূলত যে কারণের জন্য সেটি অত্যন্ত উপকারী হতে চলেছে সকলের কাছে । কারণ আজকের এই প্রতিবেদনের মাধ্যমে আপনাদেরকে জানাবো যে কিভাবে আপনি বুঝবেন আপনি যে দুধ কিনে নিয়ে আসছেন সেটির মধ্যে জল রয়েছে কিনা থাকলে কতটা আপন যাব কিভাবে ।

এইটি পরিমাপ করার জন্য একটি যন্ত্র আছে যাকে ল্যাক্টোমিটার বলে। আপনি এই যন্ত্রটি নিকটস্থ বাজারে হাতের কাছেই পেয়ে যাবেন। ল্যাক্টোমিটার পানি এবং দুধের সঠিক ঘনত্ব পরিমাপ করে। ল্যাক্টোমিটার খুবই উপকারী একটি যন্ত্র। এই পরিমাপক যন্ত্রের মধ্যে লাল রেখা দেখা যায় যেখানে পরিমাপের জন্য কিছু নির্দিষ্ট নাম্বার দেয়া থাকে। যখন এই লাল রেখা ৩০ নম্বরে থাকে তার মানে হচ্ছে দুধে অন্যান্য পদার্থের মি’শ্রণ খুব কম।

যদি এই দাগ ৩০ এর উপর যায় তাহলে পরিমাপক যন্ত্র অনুযায়ী ১/৪ পানি , আরো উপরে গেলে অর্ধেক পানি অর্ধেক দুধ। লাল রেখাটি এর থেকেও উপরে যদি উঠতে থাকে তাতে বুঝা যাবে অল্প দুধ আর বাকিটুকু মিশ্রিত পানি।ধরুন আপনি এই যন্ত্রটি যদি দুধের মধ্যে প্রবেশ করান এবং ৩০ ঘরের মধ্যে যদি কাটা থাকে তাহলে জানবেন দুধ এবং জলের পরিমাণ ঠিকঠাক । অর্থাৎ খাঁটি দুধ পাচ্ছেন । এরপর থেকে যদি দুধের মধ্যে জলের পরিমাণ ল্যাকটোমিটার ব্যবহার করুন।


Leave a Reply

Your email address will not be published.