নিউজবিনোদন ও লাইফ স্টাইল

ছেলে বলিউডের প্রথম সারির কোরিওগ্রাফার হলেও আজও চা বিক্রি করেই সংসার চালান ধর্মেশের বাবা!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- কখনো কখনো জীবন আমাদের পরীক্ষা নেয় এবং এই পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পারলেই সুখ সমৃদ্ধি সফলতা গ্রাস করে আমাদেরকে । ঠিক তেমনি ঘটেছিল বলিউডের বিখ্যাত ডান্সার তথা কোরিওগ্রাফার ধির্মেশ এর সাথে । ডান্স ইন্ডিয়া ডান্স সিজন প্রথমবারের মতন অংশগ্রহণ করে ধর্মেশ । তার পোশাক-আশাক এবং আব্বাকে বিচারকরা তাকে তেমন ভাবে পাত্তা দেয়নি বিচারকের আসনে ছিল রেমো ডিসুজা টরেন্ট লিংক সহ আরো অনেকে ।

কিন্তু যখন স্টেজে লাইট বন্ধ হয়ে গেল চালু হলো মিউজিক। তখন আলাদা ধর্মেশ কে দেখতে পেলে তারা । নাচের মাধ্যমে রীতিমতো স্টেজ কাঁপিয়ে দিয়েছিলেন তিনি । তার পরে তার পিছন ফিরে তাকাতে হয়নি । হয়তো সেই সিজেন তিনি জয়লাভ করতে পারেনি । কিন্তু মন জয় করে নিয়েছিলেন অল্প সময়ের মধ্যে লক্ষ লক্ষ দর্শকের । ধর্মেশ পরবর্তী ক্ষেত্রে রেমো ডিসুজা পরিচালিত এবিসিডি সিনেমাতে অভিনয় করে একজন ডান্সার হিসেবে ।

কিন্তু জীবন কাহিনী বলছে আলাদা কথা । কিভাবে এই জায়গায় এসে পৌঁছেছে তা শুনলে আপনার আকাশে উড়ে উঠবে । ধর্মেশ এর বাবা পেশায় একজন চা বিক্রেতা । তিনি চা বিক্রি করে সংসার চালাতেন খুব কষ্ট করে । তার ছেলে পড়াশোনা চালাতেন । কিন্তু একদিন পুরসভা থেকে তার বাবা চায়ের দোকান ভে-ঙে দেওয়া হয় ।আর্থিক অভাব-অনটনের মধ্য দিয়ে বড় হন তিনি কলেজে পড়াকালীন আর্থিক অভাব দেখা দিয়েছিল প্রবল পরিমাণে সেই সময় তিনি নিজে পিয়নের চাকরি করতেন ।

ছোট ছোট বাচ্চা ছেলে মেয়েদের কে নাচ শেখাতেন । এবং বিভিন্ন ছবিতে ব্যাকআপ ডান্সার হিসেবে কাজ করতেন ।অবশেষে ডান্স ইন্ডিয়া ডান্স জীবনের টার্নিং পয়েন্ট হিসেবে দাঁড়ায় । জীবনে অনেক সফলতা বিফলতা মধ্য দিয়ে গেলেও কখনো ভুলে যায়নি তার অতীতকেই । তিমধ্যে তিনি তার বাবাকে বলেছেন যে চায়ের দোকান বন্ধ করতে দেয়া হয় । কারণ তার বাবা এখন অব্দি চায়ের দোকান থেকে উপার্জন করে । কিন্তু বহুবার বলা সত্বেও বাবা সে পুরনো দোকান কিছুতেই বন্ধ করতে পারছেন না ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button